আমার রাজনীতি জনগণের জন্য : মাসরুর

, : গ্রাম-গন্জে চলছে এক ধরনের ী আমেজ, না এটা কোন নির্বাচন নয়, দলীয় নেতা নির্বাচন, তবুও আমেজটা নির্বাচন মুখী।

কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে সারা দেশের ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, , উপজেলায় চলছে ের দলীয় । যে ের মাধ্যমে বের হয়ে আসবে প্রতিভাবান নতুন নেতৃত্ব। তারই ধারাবাহিকতায় ঐতিহ্যেববাহী ১১ নং হাজির পাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দলীয় হচ্ছে পূর্ব নির্ধারিত ১১ ই সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখে। সাবেক, বর্তমান, নতুন মিলিয়ে অনেকেই তৃণমূল নেতা হওয়ার জন্য নিজেদের অবস্থান জানান দিচ্ছেন যার যার অবস্থান হতে। দলীয় পদে আসার জন্য নিজেদের সর্বোচ্চ উজাড় করে কর্মীদের সাথে নিজেদের যোগাযোগ রক্ষা করে চলছেন সবাই।

এবারই প্রথমবারের মতো ১১ নং হাজির পাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্মেলনে প্রার্থী হচ্ছেন ,অএ এলাকার ঐতিহ্যবাহী মিয়া ের সন্তান সাবেক ছাএ নেতা, তরুণ , সমাজ সেবক, শিক্ষানুরাগী জনদরদী মোঃনুরুল মোরছালিন মাসরুর। ও সমাজসেবামূলক কাজ করা যাদের পারিবারিক ঐতিহ্য ও রক্তের সাথে মিশে আছে। ওনার বাবা মরহুম এ বি এম সিদ্দিকুল্লা্ মিয়া এই ইউনিয়নকে প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে অক্লান্ত পরিশ্রম করে গেছেন। এই পরিবারের হাত ধরে অএ এলাকায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে হাট -, স্কুল, মাদরাসা, মসজিদ সহ অসংখ্য

ের সাথে আলাপকালে মো :নুরুল মোরছালিন মাসরুর বলেন, পারিবারিক ঐতিহ্যর বাহিরেও ব্যক্তিগত ভাবে আমি ছাএ জীবন থেকেই রাজনীতির সাথে জড়িত। প্রেক্ষাপটে বর্তমান অবস্থান নিয়ে অনেকেই হয়তো প্রশ্ন করতে পারে, তবে এগুলো নিয়ে আমি কোন চিন্তা করিনা। রাজনীতির শুরু থেকেই দল ও তৃণমূলের সাথে আছি, থাকবো, শুধু মাএ সভাপতি প্রার্থী হয়েছি বলে বলছিনা, আমার এলাকার কর্মীরা যখনই আমার সহযোগিতা চেয়েছে আমি সর্বাত্মকভাবে সহযোগিতা করে আসতেছি ভবিষ্যতেও করবো। তাই আরও বেশি করে সহযোগিতা যেন করতে পারি দল ও জনগণের সেবা করতে পারি সে জন্য নিজেকে সভাপতি প্রার্থী হিসেবে উপস্থাপন করেছি ইউনিয়ন কাউন্সিলে। তবে আমি গনতন্ত্রে বিশ্বাসী, নেতা -কর্মীদের সহযোগিতার প্রতি আস্থা রেখেই ১১ তারিখের সম্মেলনের অপেক্ষায় আছি।