সেই ভিডিওর আসল রহস্য উৎঘাটন

, ডেস্ক : গতকাল গোটা ফেইসবুক জুড়ে শুধু মেহজাবীনের আলোচনা। অনলাইনে ভাইরাল হয়েছে ৩৪ সেকেন্ডের একটি নীল ভিডিও। সোমবার প্রকাশিত ওই ভিডিওটি দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী মেহজাবীন চৌধুরীর নামে ছড়ানো হয়েছে। মূলত ভিডিওটি কোনো এক পর্ন সাইটের বলে জানা গেছে। ভুয়া এই ভিডিও নিয়ে বিব্রত মেহজাবীন ও তার পরিবার। এই নীল ভিডিওর বিষয়টি নিয়ে ভক্তদের নিকট কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন মেহজাবীন চৌধুরী।

তিনি বলেন, আমি ভক্তদের নিকট দারুণভাবে কৃতজ্ঞ যে তারা রাতভর জেগে সত্যি তথ্য উদ্ধার করেছেন। আর সবচেয়ে অবাক হয়েছি যারা না বুঝিয়েই এটা ছড়িয়েছে। মানুষের জাজমেন্ট এতো দুর্বল হলে কীভাবে হয়?

আমি হয়তো বিষয়টি বুঝতে পারছি কিন্তু যারা বুঝতে পারছে না তারা কী করবে, তাদের তো আত্মহত্যা করা ছাড়া কোনো উপায় নেই। ওই জিনিসটা ভেবে খারাপ লাগতো। কারণ এরকম স্ক্যান্ডাল যদি কারো নামে ছড়িয়ে পড়ে তাহলে সে কীভাবে ঠিক থাকবে?

আমাদের যে কোনো বিষয় ছড়ানোর আগে নিশ্চিত হয়ে নিতে হবে না হলে বড় ধরনের ক্ষতি হয়ে যাবে যেটা কারো পক্ষে পুষিয়ে দেয়া সম্ভব হবে না।

পদ্মা সেতু নিয়ে গুজবের প্রসঙ্গ টেনে মেহজাবীন বলেন, কয়েক দিন আগে পদ্মা সেতু নিয়ে গুজব তৈরি হয়। সেটা এমন একটা পর্যায়ে চলে গেল যে বাড্ডা একজন মা’কে মেরে ফেলা হলো। আমরা এতো নিষ্ঠুর হয়ে যাচ্ছি কীভাবে?

এই যে ছেলে ধরা প্রসঙ্গে নিশ্চিত না হয়ে কাউকে আক্রমণ করি কেন? আমাদের আরো সচেতন থাকতে হবে। যে কোনো বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে হলে একটু বুদ্ধি খাঁটাতে হবে। ফেক জিনিস, কোন ছবি আসল, কোন ছবি নকল, কোন ছবি ফটোশপ এসব এখন প্রমাণ করা খুব একটা কঠিন নয়।

ভক্তদের প্রতি মেহজাবীন বলেন, আমি আমার ফ্যানদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতে চাই। তারা আমাকে অনেক বেশি সাপোর্ট দিয়েছেন, তারা প্রমাণ করার চেষ্টা করেছেন। সারারাত ধরে জেগে আসল ভিডিও উদ্ধার করেছেন এজন্য তাদের অনেক ধন্যবাদ।

আইনগত ব্যবস্থা নিয়েছেন উল্লেখ করে মেহজাবীন বলেন, ইতোমধ্যে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ সাইবার ক্রাইম ডিপার্টমেন্টে যারা এসব বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়াচ্ছেন বা ছড়াতে সাহায্য করছেন তাদের বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ করেছি।

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন