প্রচারের মাধ্যমে যদি অন্যকে ভালো কাজে উদ্বুদ্ধ করা যায় তবে প্রচারই ভালো

  • খন্দকার মোঃ তারেক
  • ২০২০-০৩-৩০ ২২:৩১:২৫
image

যখনই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলো দেশ ও সমাজের কোন কাজে অবদান রাখে এবং মানুষের পাশে দাঁড়ায় তখনই সমাজের এক শ্রেণীর কি অতি সচেতন কিছু মানুষের চোখে খোঁচা লাগে। তারা এই সব কাজের প্রশংসা না করে বিভিন্ন দোষ খোঁজার চেষ্টা করে।যখন কোন দোষ পায়না তখন একটি কমন দোষ তাদের চোখে পড়ে সেটি হলো ছবি আর প্রচার।আর তখনই তারা কাঁটার ঘায়ে ঘায়েল হয়ে বারবার বলতে থাকে ছবির কথা।তারা একবারও ভাবেনা তারা যেমন এই দেশের নাগরিক স্বেচ্ছাসেবী মানুষগুলোও তাই।সেচ্ছাসেবীরা তাদের মত স্বার্থপর হয়ে হাতের উপর হাত দিয়ে কেবল নিজের সুখের কথা ভাবেনা,ভাবতে পারেনা।স্বেচ্ছাসেবীরা যেকোন সমস্যায় দেশের পাশে দাঁড়ায় কারণ এরা দেশকে ভালোবাসে।এই ভালোবাসা এবং দায়িত্ববোধই যেন কিছু মানুষের চক্ষুশূল।আসলে নিজেদের অপারগতা ঢাকতেই এরা এমন উল্টো ঢোল পেটায়,লোক দেখানো বলে,বিভিন্ন ফতোয়া দেয়, ওঠে এক একজন স্বঘোষিত মৌলভি।

যারা এমন ফতোয়া দেন তাদের জন্য বলছি- 
আরে ভালো মানুষের দল, আপনার চেয়ে সেচ্ছাসেবীরা কম জানেনা, কম বুঝেনা।এই স্বেচ্ছাসেবী মানুষগুলো কখনো ডোনেশন নিয়ে কখনোবা নিজ উদ্যোগে নিজেদের শ্রম ও মেধা দিয়ে সেবামূলক কাজগুলো করে।সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করে নিছক প্রচারের জন্য বা লোক দেখানোর জন্য নয়।বরং তারা চায় তাদের কাজগুলো দেখে যাতে অন্যরাও উদ্বুদ্ধ হয়। এবং নিজের সামর্থ্যমত ভালো কাজে অবদান রাখে।যদি তাদের কাজ দেখে একজন মানুষও অন্য একজনকে সাহায্য করে, এতেই তাদের সার্থকতা।এই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলো কখনোই ক্ষমতা বা অন্যকিছুর লোভে কাজ করে না।তারা আপনার দরজায় ভোট চাইতে আসবেনা।
 
পরিশেষে বলি- "দেশ আমার দায়িত্ব আমার" তাই হে সচেতন মানুষের দল,নিজে কিছু করতে না পারেন। ভালো কাজের প্রশংসা করতে যদি কষ্ট লাগে তাহলে প্রশংসা চাইনা কিন্তু দোষ খুঁজবেননা প্লিজ।

বিঃদ্রঃ স্বেচ্ছাসেবীদের উদ্দেশ্যে একটি পরামর্শ যদি পারেন করলে ভালো হয়- যখনই কোন অর্থ কিংবা খাদ্যদ্রব্য সাহায্য করবেন সম্ভব হলে গ্রহিতার ছবিটি হাইট করে দিবেন। আমরাও এখন থেকে এভাবেই করব।

নিউজটি শেয়ার করুন


নিউজ সম্পর্কে মতামত লিখুন


 
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ