লক্ষ্মীপুরে অসহায় মানুষের পাশে মোহাম্মদিয়া পাঠাগার ও সেবা সংঘ

  • মোঃ ইসমত দ্দোহা, লক্ষ্মীপুর
  • ২০২০-০৪-০৫ ১৭:০৬:৪০
image

চলমান বৈশ্বিক করোনা ভাইরাস মহামারীতে চিকিৎসা ও জীবনের পর আঘাত হেনেছে অর্থনীতি ও জীবন -জীবিকার উপর। একদিকে আতংকে ঘরবন্দী মানুষ, অন্যদিকে দৈনিক কাজ করে খেটে খাওয়া মানুষের খাদ্য সংকট। সবমিলিয়ে মহামারী ভয়ংকর রুপ ধারণ করছে বর্তমানে।

বড়বড় দেশি -বিদেশী কোম্পানি সাহায্য করে সরকারি তহবিলে, সরকার সাহায্য করে সর্বস্তরের জনগণকে। সরকারের পাশাপাশি ব্যক্তি ও সামাজিক সংগঠনের উদ্যোগেও চলছে প্রান্তিক জনগণের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ যেখানে হয়তো এখনো কোন মাধ্যমে সহযোগিতা পৌঁছেনি। এলাকা ভিওিক পাড়া মহল্লায়ও চলছে অসহায়দের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ। তারই ধারাবাহিকতায় লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার ১১নং হাজির পাড়া ইউনিয়নের ১১৫ টি পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছে স্হানীয় মোহাম্মদীয়া পাঠাগার ও সেবা সংঘ। 

৪ ই এপ্রিল শনিবার বিকেলে পাঠাগারের নিজস্ব কার্যালয়ে এ খাদ্য সহযোগিতা তুলে দেওয়া হয় সুবিধা বন্চিতদের মাঝে। পাঠাগারের সভাপতি মোঃ আজাদ হোসেন ভূঁইয়া, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান ও আবু সুফিয়ান মিন্টু ও সদস্য কামরুল হাসানের তও্বাবধানে খাদ্য বিতরণ কর্মসূচি পরিচালিত হয়।

সার্বিক সমন্বয় করেন পাঠাগারের সদস্য সচিব তরুণ রাজনীতিবিদ সমাজ সেবক মো:জামাল হোসেন সাগর, মিডিয়ার সাথে আলাপ কালে তিনি বলেন যে কোনো সামাজিক দুর্যোগে আমরা সংগঠনের মাধ্যমে অসহায় মানুষকে সহযোগিতা করে থাকি। তবে করোনা পরিস্থিতি আমাদের কাছে ভিন্ন এক অভিজ্ঞতা, হাঠাৎ ঘরবন্দী ও করোনার আঘাতে অনেক খেটে খাওয়া মানুষ বেকায়দায় পড়েছেন, স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে কখনো তা বুঝা যায়নি। বিশেষ করে দিনমজুর, রিক্সা চালক, পরিববহন শ্রমিক, স্হানীয় দোকানদার, হোটেল শ্রমিক এদের সবাই এখন বলা যায় বেকার, তাই আমরা চেষ্টা করছি সবার সর্বোচ্চ সামাজিক নিরাপত্তা বজায় রেখে খাদ্য বিতরণ করতে যাতে কেউ সামাজিক ভাবে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে না পড়ে। এই পরিস্থিতি চিরদিন এভাবে থাকবে না, পরিবর্তন হবে। আমরা প্রাথমিক ভাবে খাদ্য বিতরণ শুরু করলেও চেষ্টা করবো পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত অসহায় মানুষগুলোর পাশে থাকার। পাশাপাশি সবাই উদ্বুদ্ধ করেছি প্রশাসনিক সকল সিদ্ধান্ত মেনে চলার।

 
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ