করোনায় আক্রান্ত দেশগুলোকে বিনামূল্যে ‘ফ্লু ড্রাগ অ্যাভিগান’ দিবে জাপান সরকার

  • নিকিকেই এশিয়ান রিভিউ
  • ২০২০-০৪-০৬ ২১:৪০:১৬
image

শুক্রবার জাপান সরকার ঘোষণা করেছেন, নোভেল ভাইরাস করোনায় যেসব দেশ আক্রান্ত হয়েছে তাদের বিনা খরচে ফ্লু ড্রাগ অ্যাভিগান সরবরাহ করা হবে।

দেশটির প্রধান মন্ত্রীপরিষদ সচিব ইয়োশিহিদ সুগা এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, প্রায় ৩০টি দেশ তাদের কূটনৈতিকদের মাধ্যমে এই অ্যাভিগান চেয়েছেন। এটি আমরা বিনামূল্যে সরবরাহের ব্যবস্থা করছি- এমনটাই বলেছেন তিনি।

সুগা বলেছেন, এমনটি করার ফলে ওষুধের বিষয়ে চিকিৎসামূলক গবেষণা বিস্তৃত হবে। শুক্রবার পর্যন্ত জাপানে ২৬১৭ জন এই সংক্রমণের শিকার হলেও বিশ্বব্যাপী সংক্রমণে আক্রান্তের শিকার ১০ লক্ষেরও অধিক। এতে করে ভাইরাসটির চিকিৎসামূলক কার্যক্রমও কঠিন হয়ে পড়েছে।

গত ২০ মার্চ ইন্দোনেশিয়া ২০ লক্ষ অ্যাভিগান অর্ডার করেন এবং চালান গ্রহণের পর দেশটি করোনায় আক্রান্ত রোগীদের উপর এর পরীক্ষা কার্যক্রম শুরুর পরিকল্পনা করেন। প্রাথমিক পর্যায়ে দেশটিতে করোনা সংক্রমণের কোনো লক্ষণ দেখা না গেলেও কয়েক সপ্তাহ পর মহামারি আকার ধারণ করে রোগটি ১৯৮৬ জনের মধ্যে ছড়ায়। ইন্দোনেশিয়ায় এখন মৃতের সংখ্যা ১৮১ যা দক্ষিণ কোরিয়ার থেকে বেশি এবং এশিয়ায় চীনের পর দ্বিতীয়।

তুরস্কের কাছ থেকেও এমন অনুরোধ পেয়েছে জাপান। গত মাসে তুরস্কের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ফাহেরেটিন কোকা আঙ্কারায় অবস্থিত জাপানের রাষ্ট্রদূত আকিও মিয়াজিমার সাথে সাক্ষাত করেন এবং অ্যাভিগান অধিগ্রহণের বিষয়ে আলোচনা করেন- নিকিকেই এশিয়ান রিভিউকে এমনই জানিয়েছে কূটনৈতিক সূত্র।

তুরস্কের স্বাস্থ্যমন্ত্রী কোকো গত ২৩ মার্চ এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, চীনের একটি ওষুধ কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের ওপর ব্যবহার শুরু করেছে তুরস্ক। যদিও তিনি ওষুধটির নাম বলেননি তবে তুর্কি মিডিয়া এবং চিকিৎসকরা ‘ফভিপিরাবির’ নামটি প্রকাশ করেন; যা অ্যাভিগানের সাধারণ নাম।

তিনি আরও বলেন, অসুস্থতার প্রাথমিক পর্যায়ে ওষুধটি রোগীদের জন্য বেশ কার্যকর’। তুর্কি সরকার নিশ্চিত করেছেন শুক্রবার পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২০,৯২১ জন এবং মারা গেছে ৪২৫ জন।

ট্রাম্প প্রশাসনদের মধ্যেও এ নিয়ে আলোচনা চলছে এবং হোয়াইট হাউজ নিয়ন্ত্রক, কর্মকর্তা ও অভ্যন্তরীণদের মধ্যে সম্ভাব্য করোনা চিকিৎসার ওষুধ দেওয়ার অনুমতি দেওয়ার জন্য উৎসাহিত করা হয়েছে বলে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে পলিটিকো।

পলিটিকো জানিয়েছে, মার্কিন গবেষকদের শুরু থেকে ড্রাগের ঝুঁকি নিয়ে দীর্ঘদিনের উদ্বেগ থাকায় জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে এর ব্যাখ্যা করার পর অ্যাভিগান সম্পর্কে উৎসাহ বাড়তে থাকে। তবে এ নিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি হোয়াইট হাউজ।

জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুসারে দেশটিতে এখন প্রায় এক চতুর্থাংশ বিশ্বব্যাপী বিস্তার করা ভাইরাস আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে।

জার্মান সংবাদ মাধ্যম বৃহস্পতিবার জানিয়েছে বার্লিন লক্ষ লক্ষ স্টকপিলিংয়ের প্যাকের আশায় বিপুল পরিমাণ অ্যাভিগান ক্রয়ের সন্ধানে রয়েছে। ওষুধটি বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে সামরিক সহায়তায় বিতরণ করা হবে বলে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ফ্র্যাঙ্কফুর্টার অলেগামেইন জেইতুং।

চীন থেকে বিস্তৃত কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে ওষুধ হিসেবে অ্যাভিগান কার্যকর হবে, যা তৈরি করেছে জাপানের ফুজিফিল্ম হোল্ডিংসের একটি সহায়ক সংস্থা। জাপানে করোনভাইরাসের চিকিৎসা হিসাবে আনুষ্ঠানিকভাবে ওষুধটি অনুমোদিত করার পদক্ষেপও গ্রহণ করার ঘোষণা দিয়েছেন শিনজো আবে।

জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে শুক্রবার আইনজীবিদের বলেন, জনগণের উদ্বেগ যত দ্রুত সম্ভব লাঘব করতে কার্যকর চিকিৎসা এবং প্রতিষেধকের (ভ্যাকসিন) বিকাশ তরান্বিত করব আমরা।

ফুজিফিল্ম এই সপ্তাহে ঘোষণা করেছে যে তারা ভাইরাসের বিরুদ্ধে অ্যাভিগানের কার্যকারিতা পরীক্ষা করতে চিকিৎসামূলক কার্যক্রম শুরু করেছে এবং উৎপাদন র‌্যাম্প করার প্রস্তুতি নিচ্ছে। যা জাপান সরকারের কাছে কৌশলগতভাবে ২০ লক্ষ পরিমাণ সংরক্ষণে রয়েছে।

শিনজো আবে ওইদিন আরো বলেন, জাপান, আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র এবং অন্যান্য দেশগুলি রেবোডেসিভির আন্তর্জাতিক যৌথ পরীক্ষা শুরু করেছে। এটি ইবোলা প্রতিরোধের জন্য তৈরি ড্রাগ যা করোনাভাইরাসকে প্রতিরোধ করতে প্রতিশ্রুতিও দেখিয়েছে। তিনি বলেন, এই মাসে বেসরকারি খাতও এর কার্যক্রম শুরু করবে।

নিউজটি শেয়ার করুন


নিউজ সম্পর্কে মতামত লিখুন


 
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ