‘প্রণোদনা কেবল ধনী ব্যবসায়ীদের দেয়া হচ্ছে’

  • ক্রাইম প্রতিদিন ডেস্ক
  • ২০২০-০৫-০৪ ১৫:১০:৪৪
image

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গর্ভনর ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ বলেছেন, লকডাইনের কারণে সরকার যেসব প্রণোদনা ব্যাংকের মাধ্যমে দিচ্ছে, তা মূলত ধনী ও বড় ব্যবসায়ীদের জন্য। মাঝারি বা ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জন্য নয়। যতটুকু রয়েছে ব্যাংকিং জটিলতার কারণে তারা সময় মতো সে সহায়তা পাবেন না। সে সঙ্গে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতারও অভাব রয়েছে। এজন্য এখনই প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। 

গতকাল রোববার নাগরিক ঐক্য আয়োজিত ‘কোভিড ১৯: বৈশ্বিক মহামারি ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে তিনি এ কথা বলেন।

আলোচনায় অংশ গ্রহণ করে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সদিচ্ছা বারবার ব্যর্থ হচ্ছে। কারণ ভালো কাজ একা একা করা যায় না। এর জন্য একটি সর্বদলীয় কমিটি দরকার। যাতে সকল রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণ যেমন থাকবে, তেমনি কৃষক-শ্রমিকদের প্রতিনিধিত্বও থাকবে। 

তিনি আরো বলেন, দেশের দুই কোটি পরিবার অর্ধাহারে রয়েছে। সরকার গুদামে যথেষ্ট খাদ্য আছে দাবি করলেও তাদের কাছে ত্রাণ যাচ্ছে না। বড় দোকান খুলে দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু ফুটপাতের হকারদের জন্য কোনো ব্যবস্থা নেই। গুদাম খালি নেই বলে সরকার কৃষকের কাছ থেকে ধান কিনতে পারছে না। 

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজমুদার বলেন, মানুষের জীবন রক্ষার ইস্যুতে সরকার সফল হতে পারেনি। তাদের প্রস্তুতির অভাব ছিল। 

মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, করোনা পরবর্তী সময়ে দেশের অর্থনৈতিক সঙ্কট এবং সামগ্রিক পরিস্থিতি মোকাবিলা করার জন্য এখনই দেশের অর্থনীতিবীদ, ব্যবসায়ী, বিভিন্ন পেশাজীবী, এনজিও প্রতিনিধির সমন্বয়ে ৩-৫ বছর মেয়াদী একটি স্থায়ী ‘জাতীয় পুনর্গঠন কমিটি’ গঠন করতে হবে। এ সময় তিনি নাগরিক ঐক্যের পক্ষে ৮ দফা প্রস্তাব তুলে ধরেন।

নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নার সভাপতিত্বে বৈঠকস্থল ও অনলাইনে আরো বক্তব্য রাখেন বিপ্লাবী ওয়ার্কার্স পার্টিও সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহিম, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, অধ্যাপক ডা. মো. জাহিদ হোসেন প্রমূখ।

নিউজটি শেয়ার করুন


নিউজ সম্পর্কে মতামত লিখুন


 
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ