হজের টাকায় দুস্থদের জন্য টুটুলের ফ্রি মুদি-সবজি বাজার!

  • কুষ্টিয়া প্রতিনিধি
  • ২০২০-০৫-০৪ ১৬:৫৩:২৬
image

ইচ্ছে ছিল পবিত্র হজ পালন করবেন। প্রস্তুতি হিসেবে এর জন্য দীর্ঘদিন ধরে বেশ কিছু টাকাও জমিয়েছিলেন। কিন্তু এরই মধ্যে বাংলাদেশসহ গোটা বিশ্বে করোনাভাইরাসের তাণ্ডব শুরু হয়। সংক্রমণ ঠেকাতে পৃথিবীর অন্যান্য রাষ্ট্রের মত বাংলাদেশেও সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার। গত ২৪ মার্চ থেকে শুরু হওয়া টানা এই সাধারণ ছুটির কারণে গণপরিবহন, দোকান-পাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ সব কিছু বন্ধ রয়েছে।

এতে খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ চরম বিপাকে পড়েছেন। দিন আনা দিন খাওয়া এসব মানুষের কষ্ট যেন চরমে উঠেছে। ঠিক মত দুবেলা দুমুঠো খাবার জুটছে না। পরিবার-পরিজন নিয়ে এসব মানুষ এক প্রকার খেয়ে না খেয়ে জীবন যাপন করছেন। এ অবস্থায় অসহায় এসব মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে এগিয়ে আসেন কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান প্রকৌশলী ও সদর উপজেলার হাটশ হরিপুর ইউনিয়নের সন্তান আলিমুজ্জামান টুটুল।

তিনি হজের জমানো টাকা এবং চাকরির প্রভিডেন্ট ফান্ডের লোনের টাকা দিয়ে নিজ ইউনিয়নের অসহায়-দুস্থ মানুষের জন্য চালু করছেন ফ্রি ভ্রাম্যমাণ মুদি দোকান ও সবজি বাজার। হাটশ হরিপুর ইউনিয়নের বাজারে গত শুক্রবার ( ১ মে) থেকে চালু হওয়া টুটুলের এই ফ্রি ভ্রাম্যমাণ মুদি দোকান ও সবজি বাজারে চাল, ডাল, আটা, তেল, লবণ, সাবান, আলু, পেঁয়াজ, রসুন, মিষ্টি কুমড়া, পুঁইশাক, মরিচ, ঢেড়স, বাঁধাকপি, করলাসহ নিত্য প্রয়োজনীয় সব কিছুই মিলছে।

নিজের গড়ে তোলা ‘গ্রিন চাইল্ড’ ও ‘গ্রিন আর্কিটেক্ট’ নামের প্রতিষ্ঠানের ব্যানারে প্রকৌশলী আলিমুজ্জামান টুটুলসহ তার কর্মী বাহিনী মানুষের হাতে ব্যাগ ভর্তি বাজার তুলে দিচ্ছেন। নিজ ইউনিয়নের মানুষের জন্য প্রকৌশলী টুটুলের এই ব্যতিক্রমী ও মহতী উদ্যোগ সাধারণ মানুষের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে।

নৌকার মাঝি মিলন আলী। গড়াই নদীতে নৌকা দিয়ে মানুষ পারাপার করে সংসার চালান। করোনার কারণে মানুষের হাতে কাজ না থাকায় নদীতে নৌকা নিয়ে যাওয়া বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে বেকার হয়ে পড়ায় সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন। রোববার (৩ মে) সকালে ব্যাগভর্তি বাজার নিয়ে হাসি মুখে বাড়ি ফেরার সময় কথা হয় এই প্রতিবেদকের সঙ্গে।

আবেগ জড়িত কণ্ঠে মিলন বলেন, ‘ব্যাগে করে ইঞ্জিনিয়ার সাহেব চাল, ডাল, তেল, আলু, পেঁয়াজ, রসুন, মিষ্টি কুমড়া, পুঁইশাক, মরিচ, ভেন্ডি, বাঁধাকপিসহ অনেক কিছুই দিলি কিন্তু কোনো টাকা নিলি না।’

মিজানুর রহমান লালন নামে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী বলেন, করোনা সংক্রমণে সব কিছু স্থবির হয়ে পড়ায় মানুষকে বাধ্য হয়ে ঘরে অবস্থান করতে হচ্ছে। যার ফলে অনেকেই কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। এ অবস্থায় প্রকৌশলী টুটুলের এই ফ্রি মুদি ও সবজি বাজার এসব মানুষগুলোর খুব উপকারে আসবে।

প্রকৌশলী আলিমুজ্জামান টুটুল বলেন, পদ্মা নদীর শাখা গড়াই নদী বিধৌত কুষ্টিয়া সদর উপজেলার হাটশ হরিপুর ইউনিয়ন। চারিদিকে নদী বেষ্টিত এই ইউনিয়নে লক্ষাধিক লোকের বসবাস। এখানকার অধিকাংশ মানুষই খেটে খাওয়া। তারা জীবিকা নির্বাহের জন্য প্রতিদিন ভোর না হতেই নদী পাড় হয়ে কুষ্টিয়া শহরে প্রবেশ করেন। কাজ শেষে আবার রাতে বাড়ি ফেরেন। কিন্তু চলমান করোনা পরিস্থিতির কারণে অনেক মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। তারা দুবেলা দুমুঠো খেতে পারছেন না। তাই আর হাত গুটিয়ে ঘরে বসে থাকতে পারলাম না।

তিনি বলেন, নিজ ইউনিয়নের অসহায় দুস্থ এসব মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য এই ভ্রাম্যমাণ ফ্রি মুদি দোকান ও সবজি বাজার চালু করেছি। যতদিন দেশের পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হচ্ছে ততদিন পর্যন্ত এ উদ্যোগ অব্যাহত থাকবে।

নিউজটি শেয়ার করুন


নিউজ সম্পর্কে মতামত লিখুন


 
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ