বেপরোয়া যানবাহন চলাচল, ট্রাফিক পুলিশের দেখা নেই

  • ক্রাইম প্রতিদিন ডেস্ক
  • ২০২০-০৫-১২ ১৫:৫৬:০৬
ক্রাইম প্রতিদিন

 রাজধানীতে গণপরিবহন চলাচল এখনও শুরু হয়নি। ফলে নগরীর রাস্তাঘাট তুলনামূলক ফাঁকা থাকায় নগরীর প্রধান প্রধান সড়কে বিভিন্ন ধরনের যানবাহন (প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস, লরি, ট্রাক, মোটরসাইকেল, সিএনজিচালিত অটোরিকশা, ব্যাটারি চালিত রিকশা) বেপরোয়া গতিতে চলাচল করছে।

কে কার আগে যাবে, এমন এক অসুস্থ প্রতিযোগিতা চলছে। স্বাভাবিক সময়ে স্বয়ংক্রিয় সিগন্যাল বাতি কিংবা ট্রাফিক পুলিশ যানবাহন নিয়ন্ত্রণ করলেও বর্তমান করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি থাকায় ট্রাফিক পুলিশের সহজে দেখা মিলছে না। আর যেসব রাস্তায় ট্রাফিক পুলিশ রয়েছেন তারাও অনেকটা সাক্ষী গোপালের ভূমিকায় রয়েছেন।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রী (পিপিই) পরে তারা সিগন্যাল বাতির সামনে নির্মিত বিশ্রাম কক্ষে বিশ্রাম নিচ্ছেন। আর এ সুযোগে লাল বাতি জ্বললেও কেউ সিগনাল মানছেন না। দ্রুতগতিতে সকলেই ছুটছেন গন্তব্যে।

সোমবার (১১ মে) রাজধানীর মিরপুর রোড, ধানমন্ডি, কলাবাগান, রমনা ও শাহবাগ এলাকার বিভিন্ন সড়ক ঘুরে এমন দৃশ্য দেখা গেছে।

রাজধানীতে প্রতিদিন যানবাহনের সংখ্যা বেড়েই চলছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সপ্তাহ খানেক আগেও হাতেগোনা কিছু সংখ্যক যানবাহন অতি জরুরি কাজে রাস্তাঘাটে বের হত। বিনা কারণে বের হলেই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কিংবা টহলরত সেনা সদস্যদের প্রশ্নের মুখে পড়তে হত। কিন্তু এখন নগরবাসী ফ্রি-স্টাইলে রাস্তাঘাটে যানবাহন নিয়ে বের হচ্ছেন।

গণপরিবহন এখনো চালু না হওয়ায় রাস্তাঘাট কিছুটা ফাঁকা থাকায় অনেকেই দামি গাড়ি নিয়ে রাস্তায় ঘুরতে বের হচ্ছেন। দ্রুতবেগে ছুটে চলছেন তারা। অবস্থা এমন যে একটু বেখেয়াল হলেই ঘটবে ভয়াবহ দুর্ঘটনা।

নগরীর যানবাহন নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব ঢাকা মেট্রোপলিটন ট্রাফিক বিভাগের। সম্প্রতি পুলিশ সদস্যদের অনেকেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় পুলিশ সদস্যরা ভয়ে রয়েছেন। ফলে ট্রাফিক বিভাগের অনেক সদস্যকে নামকাওয়াস্তে ট্রাফিক বক্সে বসে থেকে দায়িত্ব পালন করতে দেখা যায়। অনেককে রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেলেও যানবাহন নিয়ন্ত্রণের দিকে তাদের লক্ষ্য নেই। এ পরিস্থিতিতে যেকোনো মুহূর্তে ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। এমনটাই মনে করছেন নগর বাসিন্দাদের অনেকে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পুলিশ সদর দফতরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি-মিডিয়া) মো. সোহেল রানা এ প্রতিবেদককে বলেন, বাংলাদেশ পুলিশের সদস্যরা নিরাপত্তা নিশ্চিতের পাশাপাশি ট্রাফিক ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণে কাজ করে যাচ্ছেন। কেউ যাতে অকারণে ঘরের বাইরে না বের হয় সে বিষয়টি নিশ্চিতের পাশাপাশি ফাঁকা রাজধানীর সুযোগে কেউ যাতে বেপরোয়াভাবে যান চলাচল করে দুর্ঘটনার শিকার না হয় সেগুলো তারা দেখছেন। আমরা চালকদের অনুরোধ করব আপনারা বেপরোয়াভাবে যানবাহন চালিয়ে নিজেকে এবং পথচারীদের জীবন ঝুঁকিতে ফেলবেন না। এমন কাজ করলে পুলিশ কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেবে।

 
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ