পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ‘গড় বিল’ নিয়ে বিপাকে গ্রাহকরা!

  • কুষ্টিয়া প্রতিনিধি
  • ২০২০-০৫-১২ ২১:৩৩:০৫
image

কুষ্টিয়ায় পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ‘গড় বিলের’ হিসাব নিয়ে বিপাকে পড়েছেন হাজার হাজার গ্রাহক। করোনাভাইরাস প্রাদুভাবের কারণে বাড়ি বাড়ি না গিয়ে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির পক্ষ থেকে অফিসে বসেই প্রত্যেক গ্রাহকের গড় বিদ্যুৎ বিল করা হয়েছে। কিন্তু এতে মার্চ মাসের তুলনায় এপ্রিল মাসের বিদ্যুৎ বিল প্রায় দ্বিগুণ হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন হাজারো গ্রাহক।

সরকারের অগ্রাধিকার উদ্যোগ বাস্তবায়নের অন্যতম প্রধান খাত হিসেবে দেশব্যাপী বিদ্যুৎ খাতের উত্তরণ এখন দৃশ্যত। লোডশেডিং, যান্ত্রিকত্রুটি, সিস্টেমলস, মিটারচুরি, সংযোগ ভোগান্তি ইত্যাদি নামের সমস্যাগুলির স্থান এখন যাদুঘরে। অথচ নানা অনিয়ম, অব্যবস্থাপনা ও স্বেচ্ছাচারিতার গ্যাড়াকলে গ্রাহক ভোগান্তি ও আর্থিক ক্ষতি আজও পর্যন্ত নিত্য সঙ্গী হয়ে আছে কুষ্টিয়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির প্রায় ৫ লাখ গ্রাহকের।

তাদের অভিযোগ বিদ্যুৎ সরবরাহ আগের তুলনায় কিঞ্চিত উত্তরণ হলেও প্রকৃত সত্যকে আড়াল করে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার উর্ধ্বে থেকে দিনের পর দিন মাস বা বছর ধরে মনগড়া ভৌতিক বিলের খড়গ চাপিয়ে নানামুখি ভোগান্তিসহ গ্রাহকের পকেট কেটে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ কুষ্টিয়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির বিরুদ্ধে।

এমনকি করোনাকালে গ্রাহক স্বার্থে দেওয়া সরকারি নির্দেশও মানা হয়নি। তবে বিল ভোগান্তির সত্যতা স্বীকার করে পরবর্তী মাসে তা ঠিক করে দেওয়ার কথা জানালেন কর্তৃপক্ষ। যদিও বিগত দিনের অভিজ্ঞতা থেকে কর্তৃপক্ষের এমন আশ্বাসে আস্থা রাখতে পারছেন না কোনো গ্রাহক।

জেলার কুমারখালী উপজেলার এলাকার মিজানুর রহমান বলেন, ‘আমার মার্চ মাসের বিল এসেছে ৫০১ টাকা। কিন্তু এপ্রিল মাসে বাড়িতে না এসে বিল করা হয়েছে ৭৪৫ টাকা।’

একই অভিযোগ দৌলতপুর উপজেলার খলিসাকুন্ডি গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল কুদ্দুসের। তিনি জানান, মার্চ মাসে তার বিদ্যুৎ বিল এসেছিল ৪০০ টাকা। কিন্তু এপ্রিল মাসে বিল করা হয়েছে ৯৮৯ টাকা। নুর মোহাম্মদ নামের মিরপুর উপজেলার মশান এলাকার এক গ্রাহক অভিযোগ করেন, মার্চ মাসে ৩১২ টাকা বিল করা হয় কিন্তু এপ্রিলে এসেছে ৫৭৪ টাকা।

মিরপুর উপজেলার মাশান গ্রামের কৃষি মজুর আবাসিক গ্রাহক আসান আলীর অভিযোগ, জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি-মার্চ এই তিন মাসের বিল যোগ করে তিন ভাগ করলে গড় বিল হয় ৩৫১ টাকা অথচ এপ্রিল মাসে অফিসে বসে গড় বিলের নামে আমার বিল করে দিয়েছেন ৫৭৩ টাকা। এটা কোন জাতীয় গড় বিল? পল্লী বিদ্যুৎ একবার যে বিলের বোঝা গ্রাহকের ঘাড়ে চাপায় তা আদায় করেই ছাড়ে।

ভেড়ামারা উপজেলার চাঁদগ্রামের গ্রাহক স্কুল শিক্ষক আবুল খায়ের বলেন, এ যেন গোদের ওপর বিষফোঁড়া, একদিকে করোনা সংকট মোকাবিলায় সরকার ঘোষিত লকডাউন বা সাধারণ ছুটিতে কর্মহীন ঘরবন্দি মানুষের আর্থিক ও খাদ্য সংকটে জীবন-জীবিকা নাভিশ্বাস। বিদ্যমান পরিস্থিতিতে বিদ্যুৎ বিলে বিলম্ব মাসুল মওকুফসহ গ্রাহকদের ভোগান্তি কমাতে সরকারি নির্দেশনাকেও মানছেন না। গড়বিলের কথা বলে দ্বিগুন বা তিনগুন বেশি ভৌতিক বিলের বোঝা গ্রাহকের ঘাড়ে চাপিয়েছে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি কর্তৃপক্ষ।

সময়মতো বিল পরিশোধে ব্যর্থ হলেই লাইন বিচ্ছিন্ন করবে এবং পুনঃসংযোগ দেওয়ার সময় গ্রাহকের আর্থিক ক্ষতির সঙ্গে ভোগান্তিও রয়েছে।

সদর উপজেলার বারখাদা এলাকার সমিরুল শেখ বলেন, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির গ্রাহকরা দীর্ঘদিন ধরে মাঝে মধ্যেই এমন মনগড়া ভৌতিক বিলের ঘানি টানছেন। নিয়ম না মেনে এভাবে অতিরিক্ত বিলের টাকা আদায় করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন কর্তৃপক্ষ।

তিনি বলেন, আমি ২৫ বছর আগে পল্লী বিদুতের আবাসিক সংযোগ নিয়েছি। এভাবে অসংখ্যবার তাদের মনগড়া বিলের অতিরিক্ত টাকা শোধ করতে হয়েছে। ওরা একবার যে বিল গ্রাহকের হাতে ধরিয়ে দেয় তা ঠিক হোক বা ভুল হোক ওই বিল সংশোধন করার কোন উদাহরণ আমার চোখে পড়েনি। জেনে শুনে ইচ্ছা করেই এভাবে অতিরিক্ত বিল করে তা আদায় করে যাচ্ছেন। সীমাহীন এই ভোগান্তি ও আর্থিক ক্ষতির প্রতিকার চায় সংশ্লিষ্ট বিভাগের উর্ধ্বতন মহলের কাছে।

মিরপুর উপজেলার সদরপুর এলাকার হাবিবুর রহমান বলেন, করোনার কারণে বাড়ি আসবে না বলে মিটার না দেখে বিল করেছে পল্লী বিদ্যুৎ, তবে বিলের কাগজ ঠিকই বাড়ি বাড়ি বিলি করেছে। এটা একটা ধোঁকাবাজি। গড় বিলের নামে ডবল বিল করেছে।

পল্লী বিদ্যুৎ বোর্ডের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের পরামর্শে এই গড় বিল করার ফলে জেলার দূর-দূরান্ত থেকে আগত গ্রাহকরা জড়ো হওয়ায় সামাজিক দূরত্ব লঙ্ঘনসহ ভোগান্তির মুখে বিল সংগ্রহ বুথের কর্মীরাও। তবে গড় বিলের কথা বলে প্রস্তুতকৃত বিল শুধুমাত্র বেশি হয়েছে কম হয়নি কেন এমন প্রশ্নের কোনো উত্তর দিতে পারেননি কুষ্টিয়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির বিল কালেকশন বুথের ক্যাশিয়ার তপতী রানী বিশ্বাস।

এছাড়া এসব ভুতুড়ে বিল সংশোধন করতে কুষ্টিয়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির অফিসে এসেও হয়রানির শিকার হন গ্রাহকরা। সেইসঙ্গে সমিতির ভুল হওয়া সত্ত্বেও ডুপলিকেট ফি বাবদ কেটে নেওয়া হয় টাকা। সেইসঙ্গে অদৃশ্য কারণে ডিমান্ড চার্জের নামেও নেওয়া হয় অতিরিক্ত টাকা। গ্রাহকদের বছরের পর বছর মিটার ভাড়াও দেওয়া লাগে এমন অভিযোগের পাহাড় রয়েছে এ সমিতির বিরুদ্ধে। কুষ্টিয়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি সভাপতি রেজওয়ান আলী বলেন, জেনারেল ম্যানেজার পবিস সদর দপ্তরের কথা বলে একক সিদ্ধান্তে এমন গড়মিল বিদ্যুৎ বিল প্রস্তুত এবং তার কারণে গ্রাহক ভোগান্তির প্রতিকার দাবি করলে তিনি পরবর্তী মাসে ঠিক করে দেবেন বলে জানান। তবে এ জাতীয় সমস্যা এর আগেও হয়েছে। সংক্ষুব্ধ ভুক্তভোগীরা হাইকোর্টে মামলাও করেছেন। কিন্তু প্রতিকার এখনও হয়নি জানিয়ে সমিতির সভাপতি অনুরোধ করেন, এই দুর্যোগের মধ্যে আর দুর্যোগের নিউজ করা দরকার নেই।বিলিং সেকশন বা ফাইন্যান্স বিভাগের কর্মীরা অতিরিক্ত কাজের চাপ সামাল দিতে নির্ধারিত সময়ের অধিক সময় কাজ করতে হয় এবং প্রায় ৪ লাখ ৮০ হাজার গ্রাহকের বিলিং সেবা দিতে গিয়ে কিছু ত্রুটি বিচ্যুতি হতে পারে বলে মনে করেন এই কর্মকর্তা।

এই সমিতির সাবেক এক সভাপতি দীর্ঘদিন ধরে পবিস ব্যবস্থাপনার সান্নিধ্যে কাটানোর অভিজ্ঞতা থেকে বলেন, পল্লী বিদুৎ সমিতি কর্তৃক ভৌতিক বিল প্রস্তুত করে প্রায় সাড়ে ৪ লাখ আবাসিক গ্রাহকের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় করে শত কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ দীর্ঘদিনের। গ্রাহক স্বার্থকে তুচ্ছ করায় প্রতিকার চেয়ে উচ্চ আদালতে মামলা করেও টাকার জোরে পেরে ওঠেন না গ্রাহকরা। যদিও দেশের সর্ববৃহৎ বিদ্যুৎ বিতরণ প্রতিষ্ঠান পল্লী বিদ্যুতের গ্রাহকগণই মালিক বলে প্রাতিষ্ঠানিক নীতিমালার কাগজে কলমেই সীমাবদ্ধ। কোনো গ্রাহক এ সমস্যার প্রতিকার চাইতে হলে একমাত্র আদালতই শেষ ভরসাস্থল বলে উল্লেখ করেন কুষ্টিয়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সাবেক এই সভাপতি।

কুষ্টিয়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার প্রকৌশলী সোহরাব আলী বিশ্বাস ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে ক্রাইম প্রতিদিনকে বলেন, করোনাকালে সরকারি নির্দেশনায় গড় বিল করা হয়েছে। করোনাভাইরাসের কারণে গ্রাহকদের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে মিটার রিডাররা রিডিং নিতে পারেননি। তাই প্রত্যেক গ্রাহকের গড় বিল করা হয়েছে। অতিরিক্ত বিলের সমস্যা যাদের হয়েছে তাদের বলেছি, ধৈর্য ধরুন পরবর্তী মাসের বিলের সঙ্গে সমন্বয় করে দেওয়া হবে। তবে ভৌতিক বিল করে গ্রাহকদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের অভিযোগ অস্বীকার করেন এই কর্মকর্তা।

 
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ