করোনা সংকটেও থেমে নেই স্বাস্থ্য খাতের অনিয়ম-দুর্নীতি

  • ক্রাইম প্রতিদিন ডেস্ক
  • ২০২০-০৬-১০ ১৮:০৭:১২
image

করোনার মহামারির মধ্যেও দেশের স্বাস্থ্য খাতে অনিয়ম-দুর্নীতি থামছে না। নিয়োগ, পদায়ন এবং কেনাকাটা- সবকিছুতেই দুর্নীতি জড়িয়ে আছে।  করোনা পরীক্ষায় দক্ষ জনবল সংকট কাটাতে মেডিকেল টেকনোলজিস্ট নিয়োগের সিদ্ধান্ত হলেও সেই নিয়োগেও ব্যাপক দুর্নীতি, জালিয়াতি, অনিয়ম ও লাখ লাখ টাকা ঘুষ দাবির ঘটনা ঘটেছে। এমনকি বিধি অনুযায়ী, নিয়োগের শর্ত পর্যন্ত ঠিক করা হয়নি। জারি করা হয়নি কোনো নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিও। 

দেশের করোনা আক্রান্তদের নমুনা পরীক্ষার আওতা বাড়াতে সম্প্রতি ১২ শ’ মেডিকেল টেকনোলজিস্টসহ ২৮১৭টি পদে নিয়োগের অনুমোদন চূড়ান্ত হয়। তবে শুরুতেই বিশেষ ব্যবস্থায় ১৮৩ জন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে। তবে এই ১৮৩ জন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট নিয়োগে ব্যাপক দুর্নীতি, জালিয়াতির অভিযোগ উঠেছে। অযোগ্যদের নিয়োগ দেয়ার জন্য সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স, অভিজ্ঞতাসহ অন্যান্য বিষয় শিথিল করা হয়েছে। নিয়োগ বাণিজ্য বাস্তবায়নে স্বাস্থ্য অধিদফতরের ভেরিফাইড নয় এমন আইডি থেকে তথ্য চাওয়া হয়েছে। বিপুল পরিমাণ অর্থিক লেনদেন করে যোগ্য নয় এমন ব্যক্তিদের টেকনোলজিস্ট হিসেবে নিয়োগ দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।  শিক্ষাগত যোগ্যতা ব্যতীত অন্যান্য যোগ্যতা এবং স্বাভাবিক নিয়ম প্রমার্জনা করে তড়িঘড়ি এই নিয়োগ সম্পর্কিত কাজ শেষ করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। 

পুরো প্রক্রিয়ার সঙ্গে করোনা সংক্রান্ত কাজে নিয়োজিত স্বাস্থ্য অধিদফতরের একজন অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও বর্তমান কর্মকর্তাদের অসাধু সিন্ডিকেট জড়িত রয়েছে। এই নিয়োগের ক্ষেত্রে জনপ্রতি মোটা অঙ্কের আর্থিক লেনদেন হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এমনকি এ নিয়োগে জনপ্রতি ১০ লাখ টাকা দাবি করা হয়।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের  সূত্র বলছে , কোনো নিয়োগের সিদ্ধান্ত হলে সরকারি নিয়মানুযায়ী ‘টার্মস অব রেফারেন্স’ তৈরি করার কথা। অর্থাৎ নিয়োগ সংক্রান্ত নিয়মাবলী ও শর্তসমূহ প্রণয়ন করে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি জারি হয়। কেন্দ্রীয়ভাবে অর্থাৎ স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক প্রশাসনের মাধ্যমে অথবা স্থানীয় প্রতিষ্ঠানের পরিচালকের মাধ্যমেই নিয়োগ হবে। এক্ষেত্রে প্রচলিত নিয়মনীতি উপেক্ষা করে মাত্র একদিনের মধ্যে ১৮৩ জনের তালিকা প্রণয়ন করা হয়। উল্লিখিত টেকনোলজিস্টদের ২৩টি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত দেখানো হয়েছে, যা মোটেও সত্য নয়। এমনকি কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের একটি ‘নন ভেরিফাইড’ ইমেইল আইডি থেকে তথ্য প্রদান করতে বলা হয়।

অনুসন্ধানে দেখা যায়, ৩১ মে ‘covidreport@20gmail.com থেকে অধিদফতরের আওতাধীন এক প্রতিষ্ঠান পরিচালককে একটি মেইল পাঠানো হয়। সেখানে বলা হয়, ‘আপনার প্রতিষ্ঠানের অধীনে পিসিআর ল্যাবে যদি কোনো মেডিকেল টেকনোলজিস্ট স্বেচ্ছায় কাজ করে থাকে, তাদের তথ্য নিম্নলিখিত ছক মোতাবেক ১ জুন সকাল ১০টার মধ্যে এই মেইল অ্যাড্রেসে পাঠানো হবে।’

এ ধরনের আইডি থেকে ইমেইল আসায় ওই পরিচালক সন্দেহ প্রকাশ করেন। এরপরও তিনি তার প্রতিষ্ঠানে কর্মরত প্রায় অর্ধশত টেকনোলজিস্টের নামের তালিকা ২ জুন পাঠিয়ে দেন। কিন্তু তাকে পরিচালক প্রশাসনের দফতর থেকে জানানো হয়, তালিকা জুনের ১ তারিখেই মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। এখন আর কিছুই করার নেই।

অথচ বিভিন্ন ল্যাবে করোনার নমুনা পরীক্ষায় স্বেচ্ছাশ্রম দেয়া টেকনোলজিস্টদের নিয়োগে অগ্রাধিকার দেয়ার কথা। এর অংশ হিসেবে বিভিন্ন ল্যাবের কাছে তালিকা চাওয়া হয়। তবে ল্যাব থেকে পাঠানো সব তালিকা শেষ পর্যন্ত গৃহীত হয়নি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক কর্মকর্তা সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন,  অধিদফতরের কোনো নির্দেশনা বা যোগাযোগ ব্যক্তিগত মেইলে করার সুযোগ নেই। কারণ অধিদফতরের কর্মকর্তাদের ইমেইল আইডির সঙ্গে dghs.gov.bd সংযুক্ত থাকে। অর্থাৎ অনিয়মের উদ্দেশ্যে এ ধরনের অফিশিয়াল ভেরিফাইড মেইলে ছাড়া অন্য আইডি থেকে চিঠি পাঠানো হয়েছে। যাতে কাউকে অভিযুক্ত করা সম্ভব না হয়।

সূত্র জানায়, অধিদফতর ও মন্ত্রণালয়ের কিছু অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজশে ৩ জুন এই ১৮৩ জনের নিয়োগের জন্য সর্বোচ্চ পর্যায়ের অনুমোদন নেয়া হয়। সেখানে বলা হয়, ‘দ্য সেন্ট্রাল ক্লোজেজ অ্যাক্ট ১৮৯৭ এর ১৫ ধারা অনুযায়ী নিয়োগের শিক্ষাগত যোগ্যতা ব্যতীত অন্যান্য যোগ্যতা এবং স্বাভাবিক নিয়ম প্রমার্জনা করে নিয়োগ করার অনুরোধ করা হল।’ এই মর্মে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের প্রশাসন-১ অধিশাখার উপসচিব খন্দকার জাকির হোসেন স্বাক্ষরিত এক স্মারক থেকে এই তথ্য জানা গেছে।

স্মারকে যে প্রমার্জনার কথা উল্লেখ করা হয়েছে, সাংবাদিকদের হাতে আসা আর্থিক লেনদেন সম্পর্কিত একাধিক অডিও  রেকর্ডের কথোপকথনেও চাকরি প্রার্থীকে সেই আশ্বাস দেয়া হয় ফোনের অপর প্রান্ত থেকে। এতে স্পষ্ট হয়, অধিদফতর ও মন্ত্রণালয়ের কিছু দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তার যোগসাজশেই এই কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

এই অডিওতে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল টেকনোলজিস্ট পরিষদের মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সামছুর রহমান কথা বলছেন একজন বেকার মেডিকেল টেকনোলজিস্টের সঙ্গে। সেখানে তিনি বারবার সংগঠনের কেন্দ্রীয় সেক্রেটারি আশিকুর রহমানের অবৈধ নিয়োগ বাণিজ্যের বিষয়টি তুলে ধরেছেন।

কথোপকথনে বলা হয়, ‘চাকরি কনফার্ম হলে টাকা, নইলে নয়। তারা যোগাযোগ করেছে, ২শ’র মতো লোক নেয়ার কথা। জনপ্রতি ১০ লাখের নিচে হলে হবে না। যাদের সঙ্গে কন্ট্রাক্ট হবে তাদের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা ও বয়স শিথিল করা হবে। সংগঠনের মাধ্যমে যারা যাবে, তাদের টাকার সিকিউরিটি সংগঠন দেবে। আজকের মধ্যে তালিকা দিতে হবে। আমাদের টার্গেট যারা স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে কাজ করছে, তাদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সুযোগ দেয়া হবে। এসব কাউকে বলা যাবে না।’

অপর একটি অডিও রেকর্ডে এক চাকরি প্রার্থীকে বলা হয়, ‘তুমি রাজি থাকলে টাকা রেডি করো, সময় নেই।’ এই অডিও রেকর্ড প্রমাণ করে অস্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় এই নিয়োগ সম্পন্ন হচ্ছে। এখানে সদ্যঘোষিত বঙ্গবন্ধু মেডিকেল টেকনোলজিস্ট পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আশিকুর রহমান ২০০ জনের টার্গেট নিয়ে কথা বলেছেন। তার মধ্যে ১৮৩ জন নিয়োগ পাচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে আশিকুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি সংবাদমাধ্যমকে বলেন, আমাদের সংগঠনের পক্ষ থেকে এ ধরনের কিছু আমরা করিনি। নিয়োগের সঙ্গে কারা জড়িত, সেটাও আমি বলতে পারব না। এটা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানে। তবে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল টেকনোলজিস্ট পরিষদের প্যাডে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত কাজ করতে ইচ্ছুকদের নির্দিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (প্রশাসন) ডা. বেলাল হেসেন সংবাদমাধ্যমকে  বলেছেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে তালিকা চাওয়া হলে অধিদফতর থেকে ১৮৩ জনের তালিকা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। যারা স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজ করছে, রাষ্ট্রপতির বিশেষ প্রমার্জনায় তাদের এই নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। এখানে অনিয়মের কিছু হয়নি। অধিদফতরের ভেরিফাইড নয় এমন ইমেইল আইডি থেকে কেন তথ্য চাওয়া হল- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওই আইডিটি কোভিড-১৯ সংক্রান্ত কাজে ব্যবহৃত হচ্ছে।

এ নিয়োগের সুপারিশ অবিলম্বে বাতিলের দাবিতে ‘বেকার অ্যান্ড প্রাইভেট সার্ভিসেস মেডিকেল টেকনোলজিস্ট অ্যাসোসিয়েশন’ এর পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব বরাবর ৮ জুন একটি আবেদন করা হয়। সেখানেও এ সংক্রান্ত যাবতীয় অনিয়ম উল্লেখ করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, দেশের হাসপাতালগুলোয় দীর্ঘদিন ধরে মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের ঘাটতি রয়েছে। এর মধ্যে দেশে করোনা মহামারী শুরু হওয়ায় ল্যাবরেটরিগুলোর কার্যক্রম বাড়াতে হয়েছে। ফলে নমুনা সংগ্রহ এবং পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের ঘাটতি প্রকট আকার ধারণ করে। এ অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে চিকিৎসক ও নার্সের মতো টেকনোলজিস্ট নিয়োগের দাবি ওঠে। সামগ্রিক বিষয় বিবেচনায় নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৩ হাজার টেকনোলজিস্ট নিয়োগের নির্দেশ দেন।

সামগ্রিক বিষয়ে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ-স্বাচিপ সভাপতি অধ্যাপক ডা. এম ইকবাল আর্সলান সংবাদমাধ্যমকে বলেন, করোনা মহামারীকে কেন্দ্র করে সারা বিশ্বেই স্বাস্থ্য সংক্রান্ত দুর্নীতি-অনিয়ম মাথাচাড়া দিয়েছে। বাংলাদেশও এর বাইরে নয়। এখানে অতীতের ধারা অব্যাহত রয়েছে, অনৈতিক কার্যক্রম চলমান রেখেছে। আশা করছি, এই অশুভ শক্তির ইতিবাচক পরিবর্তন হবে।

 
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ