শ্বশুরবাড়ি যাওয়ার পথে স্বামীকে বেঁধে রেখে নববধূকে পালাক্রমে ধর্ষণ!

  • ক্রাইম প্রতিদিন ডেস্ক
  • ২০২০-০৬-১৭ ০১:৪১:০৫
ক্রাইম প্রতিদিন

সদ্য বিবাহিতা ফরিদা আক্তার (ছদ্মনাম)। বিয়ের মাত্র তিন দিনের মাথায় ১৯ বছর বয়সী এই নববধূ স্বামীসহ নিজ বাড়ি থেকে শ্বশুরবাড়ি যাচ্ছিলেন। পথে চার বখাটে মিলে পথরোধ করে স্বামীকে আটকে রেখে তার সামনেই পালাক্রমে ফরিদাকে ধর্ষণ করে বীরদর্পে চলে গেল। ফরিদা পড়ে রইলেন মাটিতে, স্বামী নির্বাক। যন্ত্রণা ও অপমানের চেয়েও লজ্জাই তখন তাদের কাছে বড় হয়ে দেখা দিল। চোখের ভাষায় দুজনেই সিদ্ধান্ত নিলেন, লোকলজ্জাই আগে এড়াতে হবে।

নির্মম এই ঘটনাটি ঘটেছে চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলায়। গত ৭ জুন উপজেলার ৪ নম্বর কোলাগাঁও ইউনিয়নের বড়ুয়া পাড়ায় এই ঘটনা ঘটে। কিন্তু লোকলজ্জার ভয়ে ধর্ষিতা নারী স্বয়ং ঘটনাটির কথা কাউকে বলতে না পারলেও দ্রুতই ছড়িয়ে যায় সেই মর্মন্তুদ ঘটনার কথা। শেষ পর্যন্ত অনন্যোপায় হয়ে ঘটনার ৭ দিন পর রোববার (১৪ জুন) ওই নারী পটিয়া থানায় উপস্থিত হয়ে চার ‘ধর্ষকের’ নাম উল্লেখ করে একটি মামলা দায়ের করেন।

এজাহারভুক্ত ওই চার ধর্ষক হচ্ছে কোলাগাঁও ইউনিয়নের খায়ের উল্লাহ সওদাগরের বাড়ির মৃত আবুল হোসেনের ছেলে হান্নান (৩২), একই ইউনিয়নের আজিজুল হক মেম্বারের বাড়ির বাদশা মিয়ার ছেলে মন্টু (৩০), ফোরকান মাঝির ছেলে জুয়েল (২৮) এবং ছাত্তারের ছেলে মিন্টু (৩৩)।

মামলার এজাহারে ওই নববধূ জানিয়েছেন, গত ৪ জুন ইসলামী শরীয়াহ মোতাবেক বোয়ালখালী উপজেলার আরিফের সাথে বিয়ে হয় তার। বিয়ের ৩ দিন পর গত ৭ জুন বাপের বাড়ি থেকে স্বামীকে নিয়ে বোয়ালখালী শ্বশুরবাড়ি যাচ্ছিলেন তিনি। রাত পৌনে ৯ টার কোলাগাঁওয়ের উত্তর পাড়া ফোরকানিয়া মাদ্রাসার সামনে পৌঁছলে হঠাৎ ৪ যুবক মিলে তাদের পথরোধ করে তাদের টেনেহিঁচড়ে চিড়িঙ্গার পুকুর পাড় নামে একটি জায়গায় নিয়ে যায়। সেখানে স্বামী আরিফকে আলাদা করে আটকে রেখে পালাক্রমে রাত ১২টা পর্যন্ত তাকে জোর করে ধর্ষণ করে তারা।

পরে ১২টার দিকে তাদের সেখানে ফেলে রেখে চলে যায় ধর্ষকরা। লোকলজ্জার ভয়ে প্রথম দিকে বিষয়টি গোপন রেখেছিল জানিয়ে মামলার এজাহারে তিনি আরও উল্লেখ করেন, পরে লোকমুখে বিষয়টি জানাজানি হয়ে গেলে আত্মীয়স্বজনদের পরামর্শে তিনি মামলা দায়ের করেছেন।

অভিযুক্ত ৪ জন বিয়ের আগেও ফরিদাকে বিভিন্ন সময়ে উত্যক্ত করতো বলে মামলার এজাহারে উল্লেখ করেন তিনি।

মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে পটিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) বোরহান উদ্দিন  বলেন, ‘এই ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। আমরা আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছি। মামলার বাদীকে ফরেনসিক টেস্টের জন্য চট্টগ্রাম পাঠানো হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।’

 
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ