দেশের সব নদীতেই দখলদারের থাবা, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে তালিকা

  • ক্রাইম প্রতিদিন ডেস্ক
  • ২০২০-০৩-০৩ ১৬:৫২:৪৭
popular bangla newspaper, daily news paper, breaking news, current news, online bangla newspaper, online paper, bd news, bangladeshi potrika, bangladeshi news portal, all bangla newspaper, bangla news, bd newspaper, bangla news 24, live, sports, polities, entertainment, lifestyle, country news, Breaking News, Crime protidin. Crime News, Online news portal, Crime News 24, Crime bangla news, National, International, Live news, daily Crime news, Online news portal, bangladeshi newspaper, bangladesh news, bengali news paper, news 24, bangladesh newspaper, latest bangla news, Deshe Bideshe, News portal, Bangla News online, bangladeshi news online, bdnews online, 24 news online, English News online, World news service, daily news bangla, Top bangla news, latest news, Bangla news, online news, bangla news website, bangladeshi online news site, bangla news web site, all bangla newspaper, newspaper, all bangla news, newspaper bd, online newspapers bangladesh, bangla potrika, bangladesh newspaper online, all news paper, news paper, all online bangla newspaper, bangla news paper, all newspaper bangladesh, bangladesh news papers, online bangla newspaper, news paper bangla, all bangla online newspaper, bdnewspapers, bd bangla news paper, bangla newspaper com, bangla newspaper all, all bangla newspaper bd, bangladesh newspapers online, daily news paper in bangladesh, bd all news paper, daily newspaper in bangladesh, Bangladesh pratidin, crime pratidin, অনলাইন, পত্রিকা, বাংলাদেশ, আজকের পত্রিকা, আন্তর্জাতিক, অর্থনীতি, খেলা, বিনোদন, ফিচার, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, চলচ্চিত্র, ঢালিউড, বলিউড, হলিউড, বাংলা গান, মঞ্চ, টেলিভিশন, নকশা, ছুটির দিনে, আনন্দ, অন্য আলো, সাহিত্য, বন্ধুসভা,কম্পিউটার, মোবাইল ফোন, অটোমোবাইল, মহাকাশ, গেমস, মাল্টিমিডিয়া, রাজনীতি, সরকার, অপরাধ, আইন ও বিচার, পরিবেশ, দুর্ঘটনা, সংসদ, রাজধানী, শেয়ার বাজার, বাণিজ্য, পোশাক শিল্প, ক্রিকেট, ফুটবল, লাইভ স্কোর, Editor, সম্পাদক, এ জেড এম মাইনুল ইসলাম পলাশ, A Z M Mainul Islam Palash, Brahmanbaria, Brahmanbaria Protidin, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিদিন, Bandarban, Bandarban Protidin, বান্দরবন, বান্দরবন প্রতিদিন, Barguna, Barguna Protidin, বরগুনা, বরগুনা প্রতিদিন, Barisal, Barisal Protidin, বরিশাল, বরিশাল প্রতিদিন, Bagerhat, Bagerhat Protidin, বাগেরহাট, বাগেরহাট প্রতিদিন, Bhola, Bhola Protidin, ভোলা, ভোলা প্রতিদিন, Bogra, Bogra Protidin, বগুড়া, বগুড়া প্রতিদিন, Chandpur, Chandpur Protidin, চাঁদপুর, চাঁদপুর প্রতিদিন, Chittagong, Chittagong Protidin, চট্টগ্রাম, চট্টগ্রাম প্রতিদিন, Chuadanga, Chuadanga Protidin, চুয়াডাঙ্গা, চুয়াডাঙ্গা প্রতিদিন, Comilla, Comilla Protidin, কুমিল্লা, কুমিল্লা প্রতিদিন, Cox's Bazar, Cox's Bazar Protidin, কক্সবাজার, কক্সবাজার প্রতিদিন, Dhaka, Dhaka Protidin, ঢাকা, ঢাকা প্রতিদিন, Dinajpur, Dinajpur Protidin, দিনাজপুর, দিনাজপুর প্রতিদিন, Faridpur , Faridpur Protidin, ফরিদপুর, ফরিদপুর প্রতিদিন, Feni, Feni Protidin, ফেনী, ফেনী প্রতিদিন, Gaibandha, Gaibandha Protidin, গাইবান্ধা, গাইবান্ধা প্রতিদিন, Gazipur, Gazipur Protidin, গাজীপুর, গাজীপুর প্রতিদিন, Gopalganj, Gopalganj Protidin, গোপালগঞ্জ, গোপালগঞ্জ প্রতিদিন, Habiganj, Habiganj Protidin, হবিগঞ্জ, হবিগঞ্জ প্রতিদিন, Jaipurhat, Jaipurhat Protidin, জয়পুরহাট, জয়পুরহাট প্রতিদিন, Jamalpur, Jamalpur Protidin, জামালপুর, জামালপুর প্রতিদিন, Jessore, Jessore Protidin, যশোর, যশোর প্রতিদিন, Jhalakathi, Jhalakathi Protidin, ঝালকাঠী, ঝালকাঠী প্রতিদিন, Jhinaidah, Jhinaidah Protidin, ঝিনাইদাহ, ঝিনাইদাহ প্রতিদিন, Khagrachari, Khagrachari Protidin, খাগড়াছড়ি, খাগড়াছড়ি প্রতিদিন, Khulna, Khulna Protidin, খুলনা, খুলনা প্রতিদিন, Kishoreganj, Kishoreganj Protidin, কিশোরগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ প্রতিদিন, Kurigram, Kurigram Protidin, কুড়িগ্রাম, কুড়িগ্রাম প্রতিদিন, Kushtia, Kushtia Protidin, কুষ্টিয়া, কুষ্টিয়া প্রতিদিন, Lakshmipur, Lakshmipur Protidin, লক্ষ্মীপুর, লক্ষ্মীপুর প্রতিদিন, Lalmonirhat, Lalmonirhat Protidin, লালমনিরহাট, লালমনিরহাট প্রতিদিন, Madaripur, Madaripur Protidin, মাদারীপুর, মাদারীপুর প্রতিদিন, Magura, Magura Protidin, মাগুরা, মাগুরা প্রতিদিন, Manikganj, Manikganj Protidin, মানিকগঞ্জ, মানিকগঞ্জ প্রতিদিন, Meherpur, Meherpur Protidin, মেহেরপুর, মেহেরপুর প্রতিদিন, Moulvibazar, Moulvibazar Protidin, মৌলভীবাজার, মৌলভীবাজার প্রতিদিন, Munshiganj, Munshiganj Protidin, মুন্সীগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ প্রতিদিন, Mymensingh, Mymensingh Protidin, ময়মনসিংহ, ময়মনসিংহ প্রতিদিন, Naogaon, Naogaon Protidin, নওগাঁ, নওগাঁ প্রতিদিন, Narayanganj, Narayanganj Protidin, নারায়ণগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ প্রতিদিন, Narsingdi, Narsingdi Protidin, নরসিংদী, নরসিংদী প্রতিদিন, Natore , Natore Protidin, নাটোর, নাটোর প্রতিদিন, Nawabgonj, Nawabgonj Protidin, নওয়াবগঞ্জ, নওয়াবগঞ্জ প্রতিদিন, Netrokona, Netrokona Protidin, নেত্রকোনা, নেত্রকোনা প্রতিদিন, Nilphamari, Nilphamari Protidin, নীলফামারী, নীলফামারী প্রতিদিন, Noakhali, Noakhali Protidin, নোয়াখালী, নোয়াখালী প্রতিদিন, Norai, Norai Protidin, নড়াইল, নড়াইল প্রতিদিন, Pabna, Pabna Protidin, পাবনা, পাবনা প্রতিদিন, Panchagarh, Panchagarh Protidin, পঞ্চগড়, পঞ্চগড় প্রতিদিন, Patuakhali, Patuakhali Protidin, পটুয়াখালী, পটুয়াখালী প্রতিদিন, Pirojpur, Pirojpur Protidin, পিরোজপুর, পিরোজপুর প্রতিদিন, Rajbari, Rajbari Protidin, রাজবাড়ী, রাজবাড়ী প্রতিদিন, Rajshahi , Rajshahi Protidin, রাজশাহী, রাজশাহী প্রতিদিন, Rangamati, Rangamati Protidin, রাঙ্গামাটি, রাঙ্গামাটি প্রতিদিন, Rangpur, Rangpur Protidin, রংপুর, রংপুর প্রতিদিন, Satkhira, Satkhira Protidin, সাতক্ষীরা, সাতক্ষীরা প্রতিদিন, Shariyatpur, Shariyatpur Protidin, শরীয়তপুর, শরীয়তপুর প্রতিদিন, Sherpur, Sherpur Protidin, শেরপুর, শেরপুর প্রতিদিন, Sirajgonj, Sirajgonj Protidin, সিরাজগঞ্জ, সিরাজগঞ্জ প্রতিদিন, Sunamganj, Sunamganj Protidin, সুনামগঞ্জ, সুনামগঞ্জ প্রতিদিন, Sylhet, Sylhet Protidin, সিলেট, সিলেট প্রতিদিন, Tangail, Tangail Protidin, টাঙ্গাইল, টাঙ্গাইল প্রতিদিন, Thakurgaon, Thakurgaon Protidin, ঠাকুরগাঁও, ঠাকুরগাঁও প্রতিদিন, ক্রাইম প্রতিদিন, ক্রাইম, প্রতিদিন, Crime, Protidin, অপরাধ মুক্ত বাংলাদেশ চাই, অমুবাচা, crimeprotidin

দেশের সব নদ-নদীতে দখলদাররা থাবা বসিয়েছে। তাদের বিষাক্ত থাবায় ধীরে ধীরে মরে যাচ্ছে নদ-নদী ও খালগুলো। ৫৩ জেলার ২৩০টি নদী ও খালের বিভিন্ন অংশ দখল করেছে ১০ হাজার ৭৬২ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান। এদের উচ্ছেদ করার পরও ফের দখলের ঘটনা ঘটছে। কিছু ক্ষেত্রে হচ্ছে হাতবদল।

দখলদারদের পেছন আছেন ১১৮ প্রভাবশালী ব্যক্তি। এদের মধ্যে ক্ষমতাসীন দলের অসাধু নেতাকর্মীরাও আছেন। সম্প্রতি সরকারের একটি সংস্থা নদী দখলদার ও তাদের পরিচয় চিহ্নিত করে একটি প্রতিবেদন তৈরি করেছে। প্রতিবেদনটি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে জমা দেয়া হয়েছে।

এর সঙ্গে চার ক্যাটাগরিতে ১ হাজার ৮৯ পৃষ্ঠার সংযোজনীও দেয়া হয়েছে। দখল রোধে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণসহ ৬ দফা সুপারিশ করা হয়েছে। ভূমি ও নৌসচিবের দফতরেও এ সংক্রান্ত রিপোর্ট দেয়া হয়েছে। নির্ভরযোগ্য সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, নদী দখলদারদের বিরুদ্ধে আমাদের অবস্থান জিরো টলারেন্স। ঢাকার চারপাশের নদী দখলদারদের মতো প্রভাবশালীদের আমরা কোনো ছাড় দেইনি।

তেমনি সারা দেশেও কাউকে কোনো ছাড় দেয়া হবে না। তিনি বলেন, দখলদারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ইতিমধ্যে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসক ও ইউনওদের নির্দেশনা দিয়েছি। নদী দখল ও দূষণকারীদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিচ্ছি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশে বর্তমানে নদ-নদীর সংখ্যা ২৩০টি। দখল হওয়া নদী ও খালের সংখ্যাও ২৩০টি। এতে উল্লেখ করা হয়, দেশের বিভিন্ন স্থান, বিশেষ করে শহরাঞ্চলে রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে নদী ও খালের তীরবর্তী স্থান দখলে নিয়ে বসতবাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও স্থাপনা নির্মাণ করা হয়েছে। নদীর তীরবর্তী স্থানে অবৈধভাবে হাটবাজার বসানো হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে উচ্ছেদ অভিযানের পর রাজনৈতিক ও ক্ষমতাধর ব্যক্তি প্রভাব খাটিয়ে অবৈধ দখলদারদের ফের দখলে সহায়তা করছে।

নদী-খালের জমি দখলদারদের সঙ্গে স্থানীয় ভূমি অফিস ও অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন অধিদফতরের অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যোগসাজশ থাকে। ফের দখলের ক্ষেত্রে এ ধরনের চক্রের সহায়তা কাজে লাগানো হয়। নদীদখলে ক্ষমতাসীন দলের অসাধু নেতাকর্মীদের দৌরাত্ম্য থাকায় জনগণের মধ্যে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে।

সরকারি সংস্থার প্রতিবেদনে নদী-খাল দখলের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া তুলে ধরা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, সারা দেশের বিভিন্ন স্থানে নদনদী, খাল ও বিল অবৈধভাবে দখল হয়ে যাওয়ায় পানিপ্রবাহের গতিপথ পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে।

নদনদী সংকীর্ণ হয়ে পড়েছে। ফলে বর্ষাকালে পানির প্রবাহ ব্যাহত হওয়ার পাশাপাশি অনেক স্থানে বৃষ্টির পানি জমে ফসল ও বাড়িঘর তলিয়ে যায়। এতে জনগণের ফসল ও ঘরবাড়ি ক্ষতি হয়।

নদী-খাল দখলদারদের সঙ্গে সরকারি অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর যোগসাজশ রয়েছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, নদী দখলদারদের সঙ্গে স্থানীয় ভূমি অফিস ও বিআইডব্লিউটিএ’র অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যোগাসাজশ রয়েছে।

এছাড়া বিভিন্ন স্থানে উচ্ছেদ অভিযান চালানোর পর যথাযথ কর্তৃপক্ষ নিয়মিত মনিটরিং না করায় ফের দখল হয়ে যাচ্ছে।

তবে নদী দখলদারদের সংখ্যা অনেক বেশি বলে দাবি করেছেন নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মুজিবুর রহমান হাওলাদার। তিনি বলেন, আমাদের প্রথম তালিকায় নদী দখলদারদের সংখ্যা ৪৯ হাজার ১৬২ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান। দখলদারদের দ্বিতীয় তালিকা করছি। সেখানেও কয়েক হাজার দখলদারের নাম আসবে।

কোন জেলায় কত দখলদার : দেশের ৫৩টি জেলায় ২৩০টি নদী-খাল দখল করেছে ১০ হাজার ৭৬২ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান। দখলদারদের পৃষ্ঠপোষকতাকারী প্রভাবশালীদের সংখ্যা ১১৮ জন। সবচেয়ে বেশি ২ হাজার ১৬০ জন দখলদার আছে ময়মনসিংহে। এ জেলার দখলদাররা ৫৯টি নদী-খালের বিভিন্ন অংশ দখল করেছে।

দ্বিতীয় অবস্থানে খুলনা। এ মহানগর এলাকায় ১ হাজার ২২৯ ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান ২টি নদীর বিভিন্ন অংশ দখল করেছেন। তাদের পৃষ্ঠপোষকতায় রয়েছেন ২ জন প্রভাবশালী ব্যক্তি। আর মহানগর বাদে খুলনা জেলায় ৭টি নদী-খালে দখলদার রয়েছে ৮৯ জন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান। এ জেলায় দখলদারদের যারা পৃষ্ঠপোষকতা দিচ্ছে তারা সংখ্যায় ৬ জন।

৬০টি প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তি ঢাকা জেলা ও মহানগর এলাকায় নদী দখল করেছে। এদের পৃষ্ঠপোষক ৮ জন। অন্য জেলার মধ্যে গাজীপুরে ৪টি নদীতে ৪১, টাঙ্গাইলের ৫টি নদীতে ৭৪, কিশোরগঞ্জের ১০টি নদীতে ১১৯, নারায়ণগঞ্জের ৫টি নদীতে ১৬৬, মানিকগঞ্জের ৪ নদীতে ২৬, মুন্সিগঞ্জের ৫ নদীতে ৪২, নরসিংদীর ১ নদীতে ১৪, ফরিদপুরের ৩ নদীতে ৮ এবং রাজবাড়ীর ৪ নদীতে ২৭ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান দখল করেছে।

বাকি জেলাগুলোর মধ্যে গোপালগঞ্জের ২ নদীতে ৪৩১, শরীয়তপুরে ১১ নদীতে ১২১, জামালপুরে ৭ নদীতে ১৯৫, শেরপুরে ৭ নদীতে ১৭৭, নেত্রকোনায় ১ নদীতে ২৫, সিলেটে ২ নদীতে ১৯১, মৌলভীবাজারে ৪ নদীতে ১৮৩ জন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান দখলদার হিসেবে আছে। হবিগঞ্জের ১ নদীতে ৩২, সুনামগঞ্জের ৮ নদীতে ১৮৮, চট্টগ্রামের ২ নদীতে ৭৯, কুমিল্লার ২ নদীতে ৩৭৩, ফেনীর ১ নদীতে ৩৯, চাঁদপুরের ৩ নদীতে ৭৪৪, রাঙ্গামাটির ১ নদীতে ৫৩, বান্দরবানের ১ নদীতে ৪৫, রংপুরের ৪ নদীতে ১৬৫, দিনাজপুরের ১ নদীতে ৭৭৬, পঞ্চগড়ের ২ নদীতে ১৪, নীলফামারীর ৪ নদীতে ১১, ঠাকুরগাঁওয়ের ১ নদীতে ২২৯, রাজশাহীর ১ নদীতে ১১ ও বগুড়ার ১ নদীতে ২৩ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান দখল করে আছে।

পাবনার ২ নদীতে ২৯৭, সিরাজগঞ্জের ২ নদীতে ৫৫, নওগাঁর ২ নদীতে ১০৩, নাটোরের ২ নদীতে ৪৬৩, চাঁপাইনবাবগঞ্জের ১ নদীতে ৫২, সাতক্ষীরার ৩ নদীতে ১০৮, বাগেরহাটের ৫ নদীতে ২৬৩, যশোরের ১ নদীতে ২৭, নড়াইলের ৩ নদীতে ৮২, কুষ্টিয়ার ৪ নদীতে ১৭৯, ঝিনাইদহের ৫ নদীতে ১৩৪, মাগুরার ৩ নদীতে ৫৪, বরিশালের ২ নদীতে ৩৯, ঝালকাঠির ৫ নদীতে ১১, পিরোজপুরের ৩ নদীতে ২৭, বরগুনার ২ নদীতে ১০ এবং পটুয়াখালীর ৫ নদীতে ৬১৮ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান দখলদার রয়েছে।

সারা দেশে একযোগে অভিযানের সুপারিশ : প্রতিবেদনে অবৈধ দখলদারদের হাত থেকে নদী উদ্ধার করতে সারা দেশে একযোগে ভ্রাম্যমাণ অভিযান পরিচালনাসহ ৬টি সুপারিশ করা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, উচ্ছেদ অভিযানে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে স্থানীয় প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নির্দেশনা দেয়া যেতে পারে।

নদী ও খাল দখলকারীদের পৃষ্ঠপোষকতাকারীদের স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে সতর্ক করা যেতে পারে। এমনকি সরকারি দলের কেন্দ্রীয় পর্যায় থেকেও তাদের সতর্ক করা প্রয়োজন।

এতে আরও বলা হয়েছে, নদী দখলদারদের বিরুদ্ধে স্থানীয় ভূমি অফিস, বিআইডব্লিউটিএ ও স্থানীয় প্রশাসনকে আরও সক্রিয় করা এবং দখলদারদের বিরুদ্ধে উচ্ছেদ অভিযান চালানোর পর তা নিয়মিত মনিটরিং এবং প্রয়োজনে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ করা যেতে পারে।

 
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ